January 17, 2020, 4:22 pm

দরকার আরও ৪২ হাজার কোটি টাকা

চলতি অর্থবছরের শেষ দুই মাসে (মে ও জুন) জাতীয় রাজস্ব বোর্ডকে (এনবিআর) ৪২ হাজার ২৪২ কোটি টাকার রাজস্ব আদায় করতে হবে। প্রতি মাসে গড়ে ২১ হাজার কোটি টাকার বেশি চাই এনবিআরের। তা না হলে সংশোধিত বাজেটে অর্থের সরবরাহে টান পড়বে।

এনবিআর সূত্রে জানা গেছে, চলতি অর্থবছরের প্রথম ১০ মাসে (জুলাই-এপ্রিল) সময়ে ১৪২ হাজার ৭৫৯ কোটি টাকার রাজস্ব আদায় হয়েছে। এর মধ্যে অবশ্য মে মাস শেষ হয়ে গেলেও রাজস্ব আদায়ের তথ্য পাওয়া গেছে গত এপ্রিল পর্যন্ত। এবার এনবিআরের মূল লক্ষ্যমাত্রা ছিল ২ লাখ ৩০ হাজার ১৫২ কোটি টাকা। কিন্তু লক্ষ্য অনুযায়ী রাজস্ব আদায় না হওয়ায় তা সংশোধন করে ১ লাখ ৮৫ হাজার কোটি টাকা করা হয়েছে।

মূল লক্ষ্য অনুযায়ী, প্রথম ১০ মাসে এনবিআরের ঘাটতি ১৩ হাজার ৬৬০ কোটি টাকা। এনবিআরের লক্ষ্য ছিল ১ লাখ ৫৬ হাজার ৪১৯ কোটি টাকা।

এনবিআরকে বছরের শুরু থেকেই বিশাল লক্ষ্যের পেছনে ছুটতে হয়েছে। লক্ষ্য অনুযায়ী রাজস্ব আদায় হয়নি; কিন্তু সময় কমে এসেছে দ্রুত। রাজস্ব লক্ষ্য থেকে ক্রমে পিছিয়েছে এনবিআর।

তবু এনবিআরের সফলতা হলো রাজস্ব আদায়ের প্রবৃদ্ধি ২০ শতাংশের মতো হয়েছে। গত অর্থবছরের প্রথম ১০ মাসে ১ লাখ ১৯ হাজার ৩৪৪ কোটি টাকা আদায় হয়েছিল। গতবারের চেয়ে এবার একই সময়ে সাড়ে ২৩ হাজার কোটি টাকা বেশি আদায় হয়েছে।

আদায় করার পরিস্থিতি

জুলাই-এপ্রিল সময়ে স্থানীয় পর্যায় থেকে সবচেয়ে বেশি রাজস্ব আদায় হয়েছে। স্থানীয় পর্যায়ে সাধারণত মূল্য সংযোজন কর (মূসক) বা ভ্যাট, আবগারি শুল্ক, সম্পূরক শুল্ক ও টার্নওভার ট্যাক্স আদায় করা হয়। এ খাতে রাজস্ব আদায় হয়েছে ৫৩ হাজার ৭২২ কোটি টাকা। গতবার একই সময়ে এই খাতে রাজস্ব আদায় হয়েছিল ৪৪ হাজার ৬৩২ কোটি টাকা।

এরপর বেশি রাজস্ব আদায় হয়েছে আমদানি পর্যায়ে। আমদানি পর্যায়ে আমদানি শুল্ক, মূল্য সংযোজন কর (মূসক), সম্পূরক শুল্ক এবং রপ্তানি শুল্ক আদায় হয়েছে ৪৪ হাজার ৫২০ কোটি টাকা। গত অর্থবছরের একই সময়ে এ খাতে আদায়ের পরিমাণ ৩৬ হাজার ৮০ কোটি টাকা।

জুলাই-এপ্রিল সময়ে আয়কর, ভ্রমণ করসহ প্রত্যক্ষ কর আদায় হয়েছে ৪৪ হাজার ৫১৬ কোটি টাকা। এর মধ্যে আয়কর হিসেবে আদায় হয়েছে ৪৩ হাজার ৬৪৪ কোটি টাকা। গতবার একই সময়ে ৩৭ হাজার ৮৪৩ কোটি টাকার আয়কর আদায় হয়েছিল।

আয়কর খাতে রাজস্ব আদায় বৃদ্ধির চেষ্টা করছে এনবিআর। কিন্তু কিছুটা আশঙ্কার বিষয় হলো, ভ্যাট ও আমদানি শুল্কের চেয়ে এবার আয়কর খাতে প্রবৃদ্ধি কম হয়েছে। ১৫ শতাংশের মতো প্রবৃদ্ধি হয়েছে আয়করে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017
Design & Developed BY ThemesBazar.Com